Saturday, 21 Apr 2018

একান্ত সাক্ষাৎকারঃ সারোয়ার জামান নিপু

বাংলাদেশ অনুর্ধধ -১৬ সাফ চ্যাম্পিয়ন দলের সর্বোচ্চ গোলদাতা, শেখ জামালের তরুন তুর্কি এবং বাংলাদেশের অন্যতম প্রতিভাবন ফরোয়ার্ড সারোয়ার জামান নিপুর সাথে বসে ফুটবল ম্যানিয়াক্সের প্রতিনিধি।

ম্যানিয়াক্সঃ কেমন আছো?
নিপুঃ জ্বী ভালো।

ম্যানিয়াক্সঃ  সাফ চ্যাম্পিয়নশিপ থেকে শুরু করি। গত বছর তোমরা যখন সাফ চ্যাম্পিয়নশিপে খেলতে যাচ্ছিলা তখন তোমাদের নিয়ে আশা অতটা বেশি ছিলো না কিন্তু তোমরা সবাইকে অবাক করে টুর্নামেন্টটি জিতে আসলা, সে সময়ের ব্যাপারে বলো।
নিপুঃআমরা যারা ওই দলে ছিলাম প্রায় সবাই অনুর্ধধ -১৬ দলের হয়ে আন্তর্জাতিক পর্যায়ে পা ফেলেছিলাম। জাতীয় দলের হয়ে খেলা অনেক বড় ব্যাপার তাই সবাই নিজের সেরাটা দেওয়ার জন্য প্রস্তুত ছিলো। আমাদের কোচ জিলানি স্যার খুব ভালো একজন কোচ, উনি আমাদের মানসিকভাবে উন্নতি করতে প্রচুর সাহায্য করেছেন। এছাড়া মানিক স্যারের সাপোর্টের কথাও বলবো। আমাদের কানে যে ম্যাসেজটা আসে তা হলো যে দেশের মাটিতে খেলা তাই জিততেই হবে। বন্ধুরা ফোন করে বলতো যে, ‘প্রথমবার জাতীয় দলে ডাক পেয়েছিস, কিছু করে দেখা’। আমার মেজো ভাই যে আমাকে ফুটবল নিয়ে প্রচুর সাপোর্ট করে সে আমাকে বলেছিলো, “তোর ভিতরে প্রতিভা আছে ওইটাকে কাজে লাগিয়ে দেশের জন্য কিছু করে দেখা।” আমরা যারা দলে সুযোগ পাই তারা সুযোগ পাওয়া নিয়েই খুশি না হয়ে কিভাবে চ্যাম্পিয়ন হওয়া যায় সেটার পরিকল্পনা করতাম। আমরা নিজেদের মধ্যে বলাবলি করতাম যে খেলাটা যেহেতু দেশের মাটিতে তাই দেশকে কিছু দেই, আমরা স্কিলের দিক দিয়ে অতটা উন্নত ছিলাম না কিন্তু মনের মাঝে জিদটা ছিলো।

ম্যানিয়াক্সঃ তোমরা যে পরিমান সাফল্য এনেছো সেই তুলনায় কি পর্যাপ্ত সাপোর্ট কিংবা সম্মানটা কি পেয়েছো?
নিপুঃ জ্বী অনেকটাই পেয়েছি আবার কিছুটা পাইনি। আমাদের যেভাবে মাঠে এসে দেশবাসী সমর্থন জানিয়েছে তা ছিলো অসাধারন। আমাদের ম্যানেজমেন্ট – কোচিং স্টাফ সবাই সাপোর্ট দিয়েছে। কিন্তু কথা ছিলো চ্যাম্পিয়ন হওয়ার পর আমাদের নিয়ে ৪ বছরের ক্যাম্পিং হবে তা শেষ পর্যন্ত হয়নি।

ম্যানিয়াক্সঃতুমিসহ আর তিনজন ওই দলের বর্তমানে বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লীগে খেলছো। কিন্তু বাকিরা এখন কোথায় তা ঠিকঠাক কেউ জানেনা, কিছুদিন আগে তো গোলরক্ষক ফয়সাল খেলা ছেড়ে পুলিশের চাকরি নিতে বাধ্য হলো। প্রতিভার এই অবমূল্যায়নকে কিভাবে দেখো?

নিপুঃ ফেডারেশনের চার বছরের ক্যাম্পিংটা বাস্তবায়িত হলে সবাই একটা ভরসা পেতো যে ফুটবল খেলে কিছু একটা হবে। কিন্তু বর্তমানে অনিশ্চয়তার মাঝে দিয়েই যেতে হচ্ছে সবাইকে। তবে আমি নিজে ফয়সালের সিদ্ধান্তটি পছন্দ করিনি। যতই হোক সে একজন ফুটবলার, এইভাবে খেলাটাকে ছেড়ে দেওয়া তার উচিত হয়নি। সে ফুটবল ছাড়ার ব্যাপারে আমাদের সাথে আলাপ পর্যন্ত করেনি।

ম্যানিয়াক্সঃ এইবার আসি শেখ জামালের ব্যাপারে। এইখানে নিজের পার্ফরমেন্স নিয়ে খুশি?
নিপুঃ  জ্বী আগের থেকে সুযোগ পাচ্ছি বেশি এবং গোলের খাতাও খুলেছি তাই খুশি।

ম্যানিয়াক্সঃ  শেখ জামালে আসার সময়ে তোমার মনে নিশ্চয় অনেক স্বপ্ন ছিলো। কিন্তু মৌসুমের অনেকটা সময় ধরেই তোমাকে বসে থাকতে হয়েছে ইঞ্জুরি কিংবা ম্যানেজমেন্টের অনিচ্ছায়। এই নিয়ে কিছু বলো।
নিপুঃ আসলে এইটা বাংলাদেশের সর্বোচ্চ লীগ। এইখানে খেলা অনেক বড় ব্যাপার। যেহেতু আমি প্রথমবার এই পর্যায়ে খেলছি এবং ইঞ্জুরি নিয়ে ক্লাবে এসেছিলাম তাই টার্গেট রেখেছিলাম লীগে অন্তত ৫টা ম্যাচ খেলার। বেশি আশাও করিনি কারন যদি ইঞ্জুরি নিয়ে নিজেকে চাপ দিতাম সমস্যা বাড়তেও পারতো।

ম্যানিয়াক্সঃ  তাও যেদিন তোমাকে প্রথম নামানো হলো সেদিন নেমেই গোল করলে। তখন কেমন লাগছিলো?
নিপুঃসেটা তো অবিশ্বাস্য ছিলো। আমার দারুন লাগছিলো। এছাড়া এইটা বলবো যে সিলেটের মাঠ আমার জন্য প্রচুর লাকি। ওইখানে আমি সবসময় গোল পাই!

ম্যানিয়াক্সঃএরকম পার্ফরমেন্সের পরেও সাইড বেঞ্চে বসে থাকতে খারাপ লাগেনা?
নিপুঃআমি এখনো তরুন এবং অল্প টাকার খেলোয়াড়। আমার পজিশনে দলে অনেক অভিজ্ঞ ও দামি খেলোয়াড় রয়েছে। তাই আমার জায়গায় তাদের সুযোগ পাওয়াটাই স্বাভাবিক। তবুও একজন খেলোয়াড় হিসেবে বেঞ্চে গরম করতে খানিকটা কষ্ট লাগে।

ম্যানিয়াক্সঃ কিছুদিন আগে আচমকা জাতীয় দলের ক্যাম্পে ডাক পেলা।
নিপুঃ আসলে আমি সেভাবে আশা করছিলাম না। কিন্তু ডাক পেয়ে ভাবলাম আমি স্কোয়াডে না টিকলেও অন্তত কিছু শিখে আসি এবং দেখে আসি ওই পর্যায়ে খেলতে গেলে আর কতটুকু উন্নতি করা প্রয়োজন।

ম্যানিয়াক্সঃ ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা নিয়ে বলো।
নিপুঃ  মাত্র তো শুরু করলাম ফুটবল নিয়ে। আল্লাহ যদি সুস্থ রাখে এবং বড় কোনো ইঞ্জুরিতে না ফেলে তাইলে অন্তত ৫টা বছর একেবারে টানা জাতীয় দলকে সার্ভিস দিতে চাই।

ম্যানিয়াক্সঃ প্রিয় ফুটবলার?
নিপুঃ  সাবেকদের মাঝে রোনালদো ডি লিমা এবং বর্তমানে গ্যারেথ বেল।

ম্যানিয়াক্সঃ প্রিয় কোচ?
নিপুঃগার্দিওলা

ম্যানিয়াক্সঃপ্রিয় দল?
নিপুঃ রিয়াল মাদ্রিদ

ম্যানিয়াক্সঃ ভক্ত, সমর্থক ও পাঠকদের কিছু বলো।
নিপুঃচাই যেনো সবাই আমার জন্য দোয়া করে যাতে আমি সুস্থ থাকতে পারি এবং ভালো খেলতে পারি। আমিও দোয়া করবো যাতে সবাই সুস্থ থাকে।

সাক্ষাৎকার নিয়েছেনঃ  ফারদিন হাসান

আরো পড়ুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *