Saturday, 21 Apr 2018

টু ভেরি ইম্পর্ট্যান্ট বাট ভেরি সিম্পল এট্রিবিউটস অফ মডার্ন ফুটবল

movement of the ball

কখনো কখনো কারো কারো ড্রিবল দেখে আমাদের চোখ কপালে উঠে যায়। কারো কিলার থ্রু পাস দেখে আইবলস দেখা শুরু করি। কারো কারো ৩০ ইয়ার্ডস লং গোল দেখে এমনি এমনি মুখ থেকে বেরিয়ে আসে, ওয়াও! হোয়াট এ গোল। আসলে এগুলো খুব স্বাভাবিক বিষয়। আমার ক্ষেত্রেও ঠিক তাই। কেউ কেউ আবার ঠিক ততটাই বিরক্ত হয় কারো গেম কন্ট্রোলিং দেখে। যেমন বুসকেটস, পিরলো, আলোনসো­­, মদ্রিচ এদেরকে দেখে। মনে হয় শুধু পাসই তো দিচ্ছে । কিন্তু ঐগুলোর প্রয়োজনীয়তা আমার আপনার মত সাধারন ফুটবল সমথর্করা বোঝার ক্ষমতা রাখি না।

আসলে এটা ম্যাটার না আপনি যতই ট্রিকারি এবং ফ্লিকারির মাস্টার হন না কেনো, যদি তা ভূল জায়গায় প্রয়োগ করেন তাহলে তার কোনো মূল্য নাই। যেকোন কোচই চাইবে মদ্রিচ এর মত একজন খেলোয়াড় যে কিনা একটা সাধারন পাস দিয়ে গোলস্কোরিং চান্স ক্রিয়েট করবে। আপাতদৃস্টিতে তা খুবই সাধারন কিন্তু অনেক গুরুত্বপূর্ন । কোচরা কখনও চাইবে না ডিয়ারার মত মিডার যে খুব সহজে ৩ জনকে কাটিয়ে বের হয়ে গেলো কিন্তু তার থেকেও সহজে প্রতিপক্ষের কাছে বলটা হারিয়ে ফেললো, যা একটা কাউন্টার সৃষ্টি করবে । এসব জিনিস ছোট খেলাগুলোতে খুব একটা মেটার করে না যখন খেলাটা রিয়াল বনাম মালাগার মত কোন খেলা হয়। কিন্তু বড় খেলায় যেখানে স্কোরিং চান্স ক্রিয়েট হয় না, যেখানে প্রতিপক্ষ প্রতিটা ভুল কে লুফে নেয়। সেখানে এসব জিনিস অনেক বেশি ম্যাটার করে।

ডিসিশন টেকিং অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ন। কখন পাস দিতে হবে, কখন শট করতে হবে, কখন ড্রিবল করতে হবে। আর তার থেকেও বেশি গুরুত্বপূর্ন যা করলেন তার আউটকামটা কি! এবার আসেন ডিসিশন মেকিং এ বেস্ট কারা! ফরোয়ার্ড এরিয়াতে নিঃসন্দেহে মেসি। সে জানে কখন শট করতে হবে, কখন পাস দিতে হবে, কখন ড্রিবল করতে হবে। উদাহরন হিসেবে মেসির পিএসজির বিপক্ষে করা গোলটাই দেখেন। স্পেস ছিলো না বলে ওয়ান টু ওয়ান করে গোল দিলেন। আবার গত চ্যাম্পিয়ান্স লীগ ম্যাচে রাকিটিচকে দেয়া পাসটাই দেখেন। অনেকেই এ মূহুর্তে কাট ইন করে শট নিত। মিডফিল্ডে জাভি নিঃসন্দেহে সেরা সিদ্ধান্তকারী। সে যতগুলো পাস/টাচ নেয় প্রতিটা সঠিক সিদ্ধান্তের মাধ্যমে। তার প্রতিটা পাস এর পিছনে কোন না কোন কারন অবশ্যই থাকে ।

আর যদি সবকিছু বিচারে যায় ,তাহলে অবশ্যই মদ্রিচ। তার এক একটা পাস এর গুরুত্ব অনেক। গত ক্লাসিকোতেই দেখুন না, মদ্রিচের পায়ে যখন বল ছিলো তখন পর্যন্ত বার্সা ভেরি ওয়েলশ্যাপড ছিলো। কিন্তু যখনই থ্রু পাস দিলো বেনজেমার উদ্দ্যেশ্যে, তখনই পুরো সেটাপ ছিন্ন ভিন্ন হয়ে যায় ফলাফল গোল।

ডিসিশন টেকিং এর পরে আরেকটা খুব গুরুত্বপূর্ন জিনিস অফ দ্য বল মুভমেন্ট।

বর্তমান টেকটিক্যাল রেভুলাইজেশন এর যুগে বিপক্ষ দলের কি প্লেয়ারদের মার্ক করে রাখা হয়। আর এর ফলে কি প্লেয়ারদের নিস্প্রভ রাখা সম্ভব এবং ডাবল মার্কিং এর মাধ্যমে মেসিকে নিষ্প্রভ থাকতেও দেখেছি। যদিওবা তারদিনে সে ডাবল না টেট্রাপল মার্কিং কেও ছিন্নভিন্ন করে দেয়। এ ম্যান মার্কিং এর ঔষুধ হল অফ দ্য বল মুভমেন্ট। এর কারন প্রথমত, আপনার মার্কারকে অফ দ্য বলে আপনার সাথে বলকেও ট্র্যাক করতে হবে যেটা অনেক কঠিন। অফ দ্য বলে ম্যান মার্কিং কঠিন। উদাহরন লাগবে এল ক্লাসিকোতে রিয়ালের গোলটাতে যখন মদ্রিচের পায়ে বল ছিলো, তখন নিশ্চয় রন অফ দ্যা বল ম্যান কিন্তু কি ম্যান। মাস তাকে খুব দ্রুত মার্ক করে ফেলে। আর যখন মদ্রিচের পা থেকে বলটা বেনজেমার পায়ে যায়, মাসকে ছিটকে রন বেরিয়ে যায়। ফলে বেঞ্জামার ব্যাকহিলারটা গোলে পরিনত করে রন।

দ্বিতীয়ত যখন বল কারো পায়ে থাকে, তখন সব নজর তার দিকেই তাকে। ফলে মার্কার কে ফাকি দিয়ে আপনি যেদিকে খুশি যত স্পিডে খুশি দৌড়াতে পারবেন। যার ফলে মার্কার এর কাজ অনেক কঠিন হয়ে পড়ে। এজন্যই অফ দ্য বল মুভমেন্ট খুব বেশি গুরুত্বপূর্ন।

অফ দ্য বল মুভমেন্টের রাজা চোখ বন্ধ করে রোনালদো তথা সিআর ৭। একটুখানি দেখুন বেল আর রন দুজনেই কিন্তু উইং এ খেলে। ফিনিশিং এবিলিটিও প্রায় কাছাকাছি। স্কিলফুলি রন অনেক এগিয়ে তাও, অফ দ্যা বল মুভমেন্টের কারনে রন অনেক গোল পায়। সে জানে কখন রান দিতে হবে এবং পজিশনড হইতে হবে। যার ফলে সে নরমাল মিডার আলমিদা কিংবা পেরেরার পাসকেও জাভি বা জিদানের মত ওয়াও পাস বানিয়ে ফেলে। দেখুন না, ওজিল সে এখনো স্কোর শিটে । মারিয়া সেও স্কোর শিটে। আলোনসো সেও স্কোর শিটে । এর উদাহরন দিতে গেলে সুইডেনের বিপক্ষে তার হ্যাট্রিকই দেখুন। কোন ধরনের ট্রিকারি ছাড়া, ওয়ার্ল্ডক্লাস অফ দ্যা বল মুভমেন্টের ফলেই গোলগুলো সম্ভব হয়েছে ।

অফ দ্য বল মুভমেন্টে মিডে বেষ্ট হলো জাভি, ইনিয়েস্তা, বুসকে­টস। এ তিনজন খেলেছেন অনেক রহস্যে ঘেরা ট্রাইংগেল বেসড ফুটবল টিকিটাকাতে। যেটা তারা কি পরিমান সফল ছিলো তা আপনারা ভালই জানেন। গোলকিপারের পাস থেকে শুরু করে দলের প্রতিটা টিমমেট তাদেরকে বল দেয়ার জন্য সুইটেবল পজিশনে পাবে। কারন ঐ অফ দ্য বল মুভমেন্ট। আর তাদের ইনভিন্সিবর মিডের রহস্যটা এখানেই।

মনে হচ্ছে, এ আর এমন কি! কিন্তু কনটেক্সট অফ দ্য ফুটবল রেভিলিউশন, এগুলো কতটুকু গুরুত্বপূর্ন তা বোঝার ক্ষমতা আমাদের খুব কম ।

আরো পড়ুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *